1. admin@danikagonikontho.com : admin :
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
স্বাধীনতা বিরোধী অপ শক্তির বিরুদ্ধে মাঠে নামছে মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্ম লীগ ঠাকুরগাঁও পাক হানাদার মুক্ত দিবস পালিত মঠবাড়িয়ায় চুর-ডাকাতের ভয়ে এলাকাবাসী ভারত-বাংলাদেশ মাঝখানে কাঁটাতার,দুই পাড়ের স্বজনদের মিলনমেলা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,বঙ্গবন্ধু কন্যার হাতেই চট্টগ্রামের অভূতপূর্ব উন্নয়ন ;- খোরশেদ আলম সুজন পাকুন্দিয়ার কোদালিয়ায় মরহুম জিল্লুর রহমান স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত উচ্চ আদালত থেকে জামিন পেয়েও বাড়ি ফিরতে পারেনি সিদ্ধিরগঞ্জের বিএনপি নেতারা কিশোরগঞ্জে মানবাধিকার ও জেন্ডার বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত সিদ্ধিরগঞ্জে সেচ্চাসেবক লীগের সভা অনুষ্ঠিত ময়মনসিংহে শিক্ষার্থীদের পরিক্ষা চলাকালীন বানিজ্য মেলা,সাংবাদিক সংগঠনের মানববন্ধন

মঠবাড়িয়ার মেধাবী মামুনকে জেলা প্রশাসকের নগদ অর্থ সহায়তা প্রধান

  • আপডেট সময় : সোমবার, ২৫ জুলাই, ২০২২
  • ৬৪ বার পঠিত

পঙ্কজ মিত্র,মঠবা‌ড়িয়া(‌পি‌রোজপুর) প্র‌তি‌নি‌ধিঃ-
পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার দক্ষিণ বড়মাছুয়া গ্রামের দিনমজুর আল-আমিন আকনের ছেলে মামুন আকন এবছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘গ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। কিন্তু অর্থাভাবে মেধাবী মামুন আকনের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া নিয়ে অনিশ্চিয়তা দেখা দিয়েছিল। গণমাধ্যমে মামুন আকনকে নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশের পর তাঁকে ২০ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাহেদুর রহমান।

রোববার বিকেলে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে মামুন আকনের হাতে সহায়তা হিসেবে নগদ টাকা তুলে দেন জেলা প্রশাসক। এসময় মঠবাড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঊর্মি ভৌমিক উপস্থিত ছিলেন।

সম্প্রতি গণমাধ্যমে ‘ঢাবিতে পড়ার সুযোগ পেয়েও ভর্তি নিয়ে দুশ্চিন্তা’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়। প্রতিবেদনটি প্রকাশের পর মঠবাড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ঊর্মি ভৌমিকের নজরে আসে। এরপর ইউএনও মামুন আকনের বিষয়টি জেলা প্রশাসককে জানান।

মামুন আকন ২০১৯ সালে বড়মাছুয়া ইউনাইটেড হাই ইনস্টিটিউশনের থেকে মামুন আকন জিপিএ-৫ পেয়ে এসএসসি পাস করেন। ২০২১ সালে মঠবাড়িয়া সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েও জিপিএ-৫ পান। এরপর সে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে ‘গ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হন। ‘গ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষায় তাঁর অবস্থান ৫৩তম।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, মামুন আকনের বাবা আল-আমিন আকন দিনমজুর। আল আমিন আকনের আয়ে স্ত্রী ও তিন সন্তান নিয়ে পাঁচ জনের সংসার চালানো ছিল কষ্টকর। পরিবারটির দেড় কাঠা জমির ওপর বসতঘরটি ছাড়া কোন জমিজমা নেই। প্রাইভেট পড়িয়ে নিজের পড়াশোনার খরচ চালিয়েছেন মামুন আকন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর ভর্তির টাকা কিভাবে জোগার হবে সেই চিন্তায় ছিলেন মামুন আকন ও তাঁর পরিবার।

মামুন আকন বলেন, বসত ঘর ছাড়া আমাদের কোন সম্পদ নেই। বাবা দিনমজুরের কাজ করে যা পান তা দিয়ে সংসারের খরচ চলে। প্রাইভেট পড়িয়ে নিজের পড়াশোনার খরচ চালিয়েছি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর ভর্তির টাকা জোগার ও থাকা খাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলাম। জেলা প্রশাসক স্যার ২০ হাজার টাকা সহায়তা দিয়েছেন। এছাড়া আরও এক ব্যক্তি সহায়তা করেছেন। এখন ভর্তির খরচ, বই কেনা ও ঢাকায় গিয়ে প্রাথমিক ভাবে থাকা খাওয়ার চিন্তা দূর হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2021 Dainik Agoni Kontho
Theme Customized By Theme Park BD