1. admin@danikagonikontho.com : admin :
সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
নাজিরপুরে স্বামীর বিরুদ্ধে করা নারী নির্যাতন মামলা প্রত্যাহার না করায় স্ত্রীকে কুপিয়ে জখম চট্টগ্রাম ইপিজেড থানা পুলিশের অভিযানে ২০৪ পিস ইয়াবা সহ ১ মাদক কারবারি গ্রেফতার পাকুন্দিয়ার সার্ভেয়ার মালেক হত্যা মামলার পলাতক প্রধান আসামি গ্রেফতার ১ বছর পর কারামুক্ত হলেন নাজিরপুর উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব পাকুন্দিয়ায় “মায়ের আঁচল” আদর্শ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার মঞ্চ ভাংচুরের অভিযোগ পাকুন্দিয়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত মোংলায় যুগান্তর পত্রিকার ২৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত কিশোরগঞ্জের কবি আফসার আশরাফী নক্ষত্র সাহিত্য পুরস্কার পেলেন পাকুন্দিয়া থানা পুলিশের অভিযানে ৫ জুয়ারি গ্রেফতার একদফা দাবীতে সরাইল উপজেলা বিএনপির লিফলেট বিতরণ

মঠবাড়িয়ার মাঝের চরে দখলের হিড়িক

  • আপডেট সময় : শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৫৫ বার পঠিত

মঠবা‌ড়িয়া(‌পি‌রোজপুর) প্র‌তি‌নি‌ধিঃ-“মাঝের চর” পিরাজপুর জেলার মঠবাড়িয়া উপজেলার বেতমোর ইউনিয়নের একটি অংশ। উপজেলার মূল ভূ-খন্ড থেকে বলেশ্বর নদীর মাঝে এ দ্বীপটি হওয়ায় এর নাম করণ হয়েছে মাঝের চর। সরকারি বনায়নের পাশাপশি রয়েছে সাড়ে ৬ হাজার নারিকেল গাছ। সরকারি এ সম্পদ রক্ষার জন্য রয়েছে বন বিভাগের অফিস।

নাম প্রকাশ না শর্তে একাধিক ব্যক্তি জানান, প্রতি বছর লাখ-লাখ নারিকেল হয় এ বনাঞ্চলে। চরের চারপাশে বিভিন্ন ধরনের উপায় মাছ শিকার করা হয়। এ মাঝের চরটি ইজারা দেয়া হলে সরকারি তহবিলে আসতো প্রতি বছর লাখ লাখ টাকা। অথচ সংশিষ্ট বন কর্মকর্তার ইজারা না দিয়ে স্থানীয় এক শ্রেণীর প্রভাবশালীদের সাথে যোগসাজস করে সকল কার্যক্রম চালু রেখে আত্মসাৎ করলে লক্ষাধিক টাকা। এছাড়াও রয়েছে বন কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ।

তবে এসকল অনিয়মের বিরুদ্ধে জনৈক মো. রফিকুল ইসলাম বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়, দূর্ণীতি দমন কমিশন ও বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। স্থানীয় বাসিন্দা মিলন হোসেন আকাশ জানান, কিছুদিন পরপর কার্গো জাহাজে করে ডাব কেঁটে নিয়ে যাওয়া হয়। কে বা কাহারা ডাব কেঁটে নিচ্ছেন তা তিনি স্পষ্ট করে বলতে পারেন নি। ইতোমধ্যে বনের ভিতরে বড়-বড় গাছ পাচার হয়ে গেছে।

এব্যপারে মঠবাড়িয়া উপজেলা বন কর্মকর্তা মো. সেলিম এর কাছে জানতে চাইলে তিনি ডাব বিক্রি, মাছ শিকারের বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, মাঝর চর কখনোই ইজারা দেয়া হয়নি। একই কথা বললে বিভাগীয় (বাগেরহাট) বন কর্মকর্তা মো. সাজ্জাত হোসেন। তবে তিনি আরও বলেন, মাঝের চরেিট ইজারা দেয়ার প্রস্তুতি চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2021 Dainik Agoni Kontho
Theme Customized By Theme Park BD